গোলাপগঞ্জে মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টা, পুরোহিত গ্রেফতার

বাংলাদেশ

সিলেটের গোলাপগঞ্জের পল্লীতে মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে পুরোহিতকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। বুধবার রাতে উপজেলার বাঘা ইউনিয়নে এ ঘটনার পর থানায় মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার পুলিশ গ্রেফতার পুরোহিতকে কারাগারে পাঠায়। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

আটক পুরোহিত প্রাণগোবিন্দ দাস ওরফে ফরেস্ট চৌহানের (৪৫) বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার দেলদোহার থানার সিলিমপুর গ্রামে। তিনি সিলিমপুরের কালু চৌহানের ছেলে। দীর্ঘ দিন ধরে উপজেলার বাঘা ইউপির কালাকোনা গ্রামে শ্রী শ্রী গিরিধারী জিউ মন্দিরের পুরোহিত হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন প্রাণগোবিন্দ দাস।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় ধর্মীয় শিক্ষা লাভের জন্য ওই মন্দিরে যান বাঘা এলাকার হিন্দু ধর্মের এক তরুণী। এ সময় পুরোহিত প্রাণগোবিন্দসহ তার আরেক সহযোগী একই উপজেলার কালাকোনা গ্রামে দিপঙ্কর দেব তপন মন্দিরের পাশে নিয়ে মুখে চেপে ধরে তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টা করেন। তখন তরুণী চিৎকার দিলে তার স্বজনরা এগিয়ে এসে তরুণীকে উদ্ধার করেন।

একইসাথে পুরোহিত প্রাণগোবিন্দকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। এ ঘটনার পর পরই দিপঙ্কর দেব তপন পালিয়ে যান। এ ব্যাপারে তরুণী গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় পুরোহিত প্রাণগোবিন্দ ও দিপঙ্কর দেব তপনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন।

ওই মামলায় পুরোহিত প্রাণগোবিন্দকে গ্রেফতার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার কারাগারে পাঠানো হয়েছে। জানতে চাইলে বৃহস্পতিবার বিকেলে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হারুনুর রশীদ চৌধুরী জানান, মামলা হয়েছে। আসামি প্রাণগোবিন্দকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।