ছেলেদের সঙ্গে ঈদ করতে চান বৃদ্ধাশ্রমে থাকা মা

বাংলাদেশ

ছেলেদের সঙ্গে ঈদ করতে চান বৃদ্ধাশ্রমের জহুরা আলতা বানু। বয়স ৭০ বছর। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার মসজিদ পাড়ার বাসিন্দা ছিলেন। তার বিবাহিত জীবনে নিজের কোনো সন্তান নেই। স্বামী কতদিন আগে মারা গেছেন তা-ও বলতে চান না ক্ষোভে। কবে প্রায় ছয় বছর ধরে বৃদ্ধাশ্রমে রয়েছেন।

আলতা বানু জানান, স্বামী মারা যাওয়ার পর যা সম্পদ ছিল সবটুকু পালিত ছেলেকে লিখে দেন। এরপর থেকে পালিত ছেলে আর তার খোঁজখবর রাখেননি। ফলে বাধ্য হয়ে আসতে হয় বৃদ্ধাশ্রমে।

জহুরা বেগম (৭৫) নামের আরেক বৃদ্ধা জানালেন, তিনি পাঁচ বছর ধরে মহানন্দা প্রবীণ নিবাস বৃদ্ধাশ্রমে রয়েছেন। স্বামী ও ঘর-সংসার সবই ছিল তার। কিন্তু স্বামী এবং ছেলেদের অত্যাচারে তিনি বাড়ি ছাড়তে বাধ্য হন। স্বামী মারা যান দেড় বছর আগে। তারপরে ছেলেরা তার খোঁজ রাখেননি। শুধুমাত্র এক মেয়ে মাঝেমধ্যে এসে খবর নিয়ে যান।

তিনি অঝোরে কেঁদে কেঁদে বলেন, ‘ছেলেরা যদি আমাকে বাড়িতে নিয়ে যায়, তবে আমি রোজার ঈদ তাদের সঙ্গে করতে চাই। তবে কেউ নিতে যায় না। বছরের পর বছর আশায় থাকি হয়তোবা কোনো সন্তান এসে নিয়ে যাবে। কিন্তু কেউ আসে না। তবে এখানে যারা দেখাশোনা করেন সবাই আন্তরিক।’

একই কথা শোনান স্বামীহারা আসমা (৬৫)। তার এক ছেলে ও এক মেয়ে ছিল। ছেলে মারা গেছেন অনেক আগে। আর মেয়ের বিয়ে হয় অন্যত্র। সে ঘরের নাতনি এসে তাকে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে যান দেড় বছর আগে। তখন থেকে তিনি এখানেই রয়েছেন।

সুফিয়া (৭০) নামের এক বৃদ্ধা জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেহায়চর তার বাড়ি ছিল। সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান মারা যাওয়ার কিছু দিন পরেই মারা যান তার স্বামী। এরপর হতেই তিনি ভাইদের বাড়িতেই থাকছিলেন। কিন্তু তার যেটুকু সম্পদ ছিল তার ভাইয়েরা লিখে নেয়ার পর রেখে গেছেন বৃদ্ধাশ্রমে।

আজাইপুর এলাকার কালু মণ্ডল (৭০) জানান, তিনি দুই বছর ধরে এই বৃদ্ধাশ্রমে রয়েছেন। তার একজন প্রতিবন্ধী মেয়ে এবং ছেলে রয়েছে। ছেলে এবং স্ত্রী তার সব সম্পদ লিখে নিয়ে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। এরপর থেকে তার ঠিকানা হয় এই বৃদ্ধাশ্রমে। তিনি বলেন, জমি লিখে দেয়ার পর থেকে তার ওপর অত্যাচার শুরু করেন ছেলে এবং স্ত্রী।

আলিনগরের বাসিন্দা এবু আলী (৮০) বলেন, ‘মহানন্দা প্রবীণ নিবাসে শিশুকালের মতোই আমাদের সেবাযত্ন করা হয়। আমরা কোনো কিছুর অভাব বুঝতে পারি না। এখানে আমাদের সব কিছুর ব্যবস্থা রয়েছে। অসুখ হলে চিকিৎসকরা এসে চিকিৎসা দেন। মনে হচ্ছে নিজ বাড়ির চেয়ে অনেক ভালোই আছি এখানে।’

কথা হয় চাঁপাইনবাবগঞ্জ (দক্ষিণ শহর) প্রবীণ নিবাসের (বৃদ্ধাশ্রম) ম্যানেজার আলিউর রেজা আলমের সঙ্গে। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ‘২০১৬ সালে সমাজসেবার অনুমোদন নিয়ে জেলার ১৮ জন বিশিষ্ট ব্যক্তির উদ্যোগে সাড়ে তিন বিঘা জমির ওপর গড়ে তোলা হয় বৃদ্ধাশ্রমটি।

বর্তমানে এখানে ১২ জন নারী ও চারজন পুরুষ রয়েছেন। তাদের থাকার জন্য রয়েছে আলাদা আলাদা ওয়ার্ড এবং আলাদা বিছানা। তাদের কাপড় থেকে শুরু করে খাবার যাবতীয় যা প্রয়োজন সব কিছু বহন করা হয় এই বৃদ্ধাশ্রমে। তাদের রুটিন করে খাবার দেয়া হয়।’

তিনি আরও জানান, বৃদ্ধাশ্রমটির দ্বিতীয় তলার কাজ চলছে। সে কাজ করতে গিয়ে বেশ কিছু টাকা দেনা রয়েছে। কাজ শেষ হলে আরও অসহায় বৃদ্ধদেরও রাখা সম্ভব হবে। তার দাবি, সমাজসেবা অধিদফতর থেকে যে পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয় তা খুবই সামান্য। ওই বরাদ্দ দিয়ে কিছুই হয় না।

অদম্য নারী হাফেজদের গল্পঅদম্য নারী হাফেজদের গল্প

‘প্রথম হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় জাতীয় পুরস্কার পাই সেই শৈশবে, ১০ বছর বয়সে। বাংলাদেশ শিশু একাডেমি থেকে; আরেকটি ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে। সেটি ১৯৮৬ সালের কথা। তারপর ১৯৯০ সালে যেতে চাই আন্তর্জাতিক কেরাত প্রতিযোগিতায়। কিন্তু বয়স স্বল্পতার কারণে তার অনুমতি মেলেনি।’
ছবি: লেখক

‘প্রথম হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় জাতীয় পুরস্কার পাই সেই শৈশবে, ১০ বছর বয়সে। বাংলাদেশ শিশু একাডেমি থেকে; আরেকটি ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে। সেটি ১৯৮৬ সালের কথা। তারপর ১৯৯০ সালে যেতে চাই আন্তর্জাতিক কেরাত প্রতিযোগিতায়। কিন্তু বয়স স্বল্পতার কারণে তার অনুমতি মেলেনি।’

কথাগুলো বলছিলেন হাফেজা কারিয়া শামসুন্নাহার সিদ্দিকা। অনুমতি পাননি বলে থেমে যাননি। তার বাবা মাওলানা শরাফত উল্লাহ খুব করে চাইতেন, মেয়ে তার আন্তর্জাতিক কেরাত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করুক।বিয়ের পর তাকে আরেকটু এগিয়ে দিলেন তার স্বামী ডাক্তার মুহাম্মদ আমিরুল ইসলাম।

প্রিয়তম স্বামীর উৎসাহে শামসুন্নাহারের স্বপ্নের ঘোড়া তখন আরও তেজস্বী হয়ে ওঠে। দেশের সীমানা পেরিয়ে তিনি তখন ডানা মেলেন বিদেশের মাটিতে। মালয়েশিয়ায় আন্তর্জাতিক কেরাত প্রতিযোগিতায় ৭ বার তিনি চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। ২০০৪ সাল থেকে টানা ২০০৯ সাল পর্যন্ত। সর্বশেষ ২০১৬ সালে।

এর আগে ১৯৯৮ সালে হয়েছিলেন দ্বিতীয়। ইরানেও গিয়েছেন একবার। শামসুন্নাহারের চার মেয়ে। জানতে চাইলাম, সন্তান সামলে কীভাবে এসব প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন? তিনি বললেন, ‘আমার বাবার স্বপ্ন ছিল আমি আন্তর্জাতিক কেরাত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করব।

বিয়ের পর কেউ স্বপ্নের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াননি। আমার শাশুড়ি, আমার বোন অনেক সময় আমার সন্তান সামলিয়েছেন। তবে যারা প্রতিযোগী থাকত বাংলাদেশের, তারা আমাকে আটকানোর চেষ্টা করেছে বহুবার! প্রতি বছরই যখন মালয়েশিয়া যাচ্ছি, কর্তৃপক্ষের মনে খটকা লাগল।

তখন বিশ-ত্রিশজন বিচারক একসঙ্গে বসে আমার পরীক্ষা নিলেন। তাদের মধ্যে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের মরহুম খতিব উবায়দুল হকও ছিলেন। আমার তিলাওয়াত শুনে তারা বললেন, ‘আসলেই তুমি যোগ্য।’ শামসুন্নাহারের চার মেয়ে। মেয়েদের সবাইকে তিনি নিজেই হাফেজা বানিয়েছেন।

তারা হলেন- হাফেজা ফাতিমাতুজ জুহরা মারিয়া, হাফেজা কারিয়া খাদিজাতুল কুবরা উলফাত, হাফেজা কারিয়া আয়েশা সিদ্দিকা, হাফেজা ফাবিহা বুশরা আরাবিয়া। বিশ্বজয়ী হাফেজা শামসুন্নাহার বলেন, ‘শেরপুর থেকে ঢাকায় এসে তেজগাঁও রহমতে আলম মিশন মাদ্রাসায় পড়াশোনা করি।

মূলত এখানে হেফজ শুনাই। পাশাপাশি অন্যদের মশকও করাতাম। বিয়ের পর কিছুদিন এখানে শিক্ষকতা করেছি। তারপর চলে এসে নিজে একটি মাদ্রাসা দিই। মাদ্রাসার বয়স ২৭ বছর। আমার চার মেয়ে আমার কাছেই হাফেজ হয়েছে।’ মা যেমন বিশ্বজয়ী হাফেজা, তেমনি ঠিক তার মেয়েরাও।

মেয়েরা তার কাছে হাফেজ হয়ে তাজবিদ ও লেহান (স্বর ও সুর) শেখার জন্য পড়াশোনা করছেন মারকাযুত তাহফিজ ইন্টারন্যাশনাল মাদ্রাসায়। তিনি বললেন, ‘সাধারণত মহিলা মাদ্রাসায় তাজবিদের প্রতি তেমন গুরুত্ব দেওয়া হয় না। কিন্তু হাফেজ নেসার সাহেবের মাদ্রাসায় গুরুত্ব দেওয়া হয়।

তাই মেয়েদের সেখানে পাঠিয়েছি। আমার মেয়ে আয়েশা পাঁচ বছর বয়সে ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে জাতীয় পুরস্কার পায়। আমার বাবা আমাকে বলেন, ‘তুমি জাতীয় পুরস্কার পেয়েছ ১০ বছর বয়সে, আর তোমার মেয়ে পেয়েছে পাঁচ বছর বয়সে।’ হাফেজা আয়েশা সিদ্দিকা ২০১৭ সালে আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় যেতে চেয়েছিল।

বয়স স্বল্পতার অজুহাতে অনুমতি মেলেনি। ২০১৮ সালে বয়স পার হলেও পাসপোর্ট জটিলতায় তার ইরান যাওয়া অনেকটাই আটকে যায়। অবশ্য বহু কাঠখড় পড়ানোর পর যাওয়ার সুযোগ হয়েছিল তার। ইরান থেকে নিয়ে এসেছিলেন চ্যাম্পিয়ন পুরস্কার। সর্বশেষ ২০১৯ সালে দুবাই আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় যাওয়ার জন্য নির্বাচিত হন।

কিন্তু করোনার প্রকোপে আর যাওয়ার সুযোগ হয়নি। তার বড় বোন খাদিজাতুল কুবরা ২০২০ সালে ইরান আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতার জন্য নির্বাচিত হয়েছিল। করোনার প্রকোপে তাও থমকে গেছে। খাদিজাতুল কুবরা বলেন, ‘কুরআন তিলাওয়াত আমার নেশা হয়ে গেছে। দৈনিক পাঁচ পারা কাউকে না শুনালে আমার ভালোই লাগে না।’

আয়েশা সিদ্দিকা বলেন, ‘রমজানে এখন নামাজে বেশি তিলাওয়াত করি। প্রতিদিন জোহর নামাজে যে দুই পারা তিলাওয়াত করি, সেই দুই পারা আসর, মাগরিব, এশা ও তাহাজ্জুদেও তেলাওয়াত করি। ফলে একদিনে এই দুই পারা পাঁচবার তিলাওয়াত হয়। পুরো রমজানে নামাজেই হবে ১০ খতম।’ এমন গুণী মেয়েদের পেয়ে গর্বিত কিনা জানতে চাইলে হাফেজা শামসুন্নাহার বলেন, ‘হাফেজদের মায়েদের জন্য আখেরাতে রয়েছে জান্নাত।

কিন্তু আমার মেয়েদের দিকে তাকালে, তাদের তিলাওয়াত শুনলে মনে হয়, আল্লাহ আমাকে পৃথিবীতেই জান্নাত দিয়ে দিয়েছেন। আমি চাই, তারা হিফজ অটুট রাখুক। দ্বীনের পথে চলুক। কুরআনের আলো ছড়িয়ে দিক দিগ্বিদিক। যেন আখেরাতে কোথাও আটকাতে না হয়।’
লেখক : তরুণ আলেম, সমাজকর্মী ও ধর্মীয় নিবন্ধকার