যেভাবে এখনও বিদেশে যেতে পারেন খালেদা জিয়া, জানালেন আইনমন্ত্রী

বাংলাদেশ

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানিয়েছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ স্বীকার করে প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতি বরাবর ক্ষমা প্রার্থনা করলে তিনি মুক্তি পেতে পারেন। সোমবার দিবাগত রাতে এক গণমাধ্যমে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, সরকার যদি কোনো পদক্ষেপ নেয় তবে তা আইনের মাধ্যমে নিতে হয়। আইনে বলা আছে, প্রধানমন্ত্রী চাইলে যে কোনো দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিকে শর্তসাপেক্ষে অথবা নিঃশর্তভাবে ৪০১ ধারা বলে মুক্তি দিতে পারেন। ৪০২ ধারার মাধ্যমে রাষ্ট্রপতিও এই ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারেন।

এছাড়া রাষ্ট্রপতি সংবিধানের ৪৯ নম্বর আর্টিকেলের মাধ্যমে নিজ ক্ষমতাবলে যে কোনো দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করতে পারেন। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া প্রথমবার যখন মুক্তি চেয়ে দরখাস্ত দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী তখন ৪০১ ধারা বলে তাকে শর্তসাপেক্ষে মুক্তি দিয়েছিলেন।

খালেদা জিয়া ওই সময় সব শর্ত মেনে নিয়ে মুক্তি পেয়েছেন। সেই সময় ওই দরখাস্ত নিষ্পত্তি হয়ে গেছে। আইনমন্ত্রী বলেন, একটি দরখাস্ত নিষ্পত্তি হওয়ার পর আবারও সেটা পুনর্বিবেচনা করার এখতিয়ার আইনে কোথাও বলা নেই। তাই যে দরখাস্ত নিষ্পত্তি হয়ে গেছে সেটা আর পুনর্বিবেচনার সুযোগ নেই।

তবে খালেদা জিয়া যদি তার বিরুদ্ধে আনিত সমস্ত অপরাধ স্বীকার করে আবারও প্রধানমন্ত্রী অথবা রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং তারা যদি খালেদা জিয়াকে ক্ষমার বিষয়টি বিবেচনা করে তাকে মুক্তি দেন তাহলে তিনি বিদেশ অথবা যে কোনো জায়গায় যেতে পারেন, বলেন আইনমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশযাত্রার অনুমতি না দেওয়ায় পরিবারের পাশাপাশি উদ্বিগ্ন দলের নেতাকর্মীরা। হতাশ ও ক্ষুব্ধ হয়েছেন মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি না দেওয়ার বিষয়ে যতটা আইনি দিক রয়েছে, তার চেয়ে রাজনীতি রয়েছে।

বিএনপি নেতারা মনে করেন, খালেদা জিয়াকে ‘ভিত্তিহীন’ মামলায় সাজা দিয়ে কারাবন্দী করার অর্থ হচ্ছে- তাকে নির্বাচনের মাঠ থেকে সরিয়ে দেওয়া। যে ষড়যন্ত্র ওয়ান-ইলেভেনের সময় থেকে হয়ে আসছে।

প্রধানমন্ত্রীর কাছে চাকরিপ্রত্যাশী যুব প্রজন্মের ‘খোলা চিঠি’

করোনাকালীন প্রণোদনা হিসেবে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩২ করার আবেদন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে খোলা চিঠি দিয়েছেন চাকরিপ্রত্যাশীরা। বুধবার (২৮ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এই চিঠি জমা দেয়া হয়। চাকরিপ্রত্যাশী যুব প্রজন্মের ব্যানারে খোলা চিঠিটি দেয়া হয়েছে।

চিঠিতে তারা লিখেছেন, করোনার ভয়াবহতায় সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশও জর্জরিত, কিন্তু আপনার নেতৃত্বে আমরা শক্ত হাতে করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করে যাচ্ছি। তবে কিছু ক্ষতি আছে যেটা তরুণ প্রজন্মকে ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখে ঠেলে দিচ্ছে, চরম অনিশ্চয়তা ও হতাশা জীবনকে অন্ধকারাচ্ছন্ন করে ফেলছে।

আমরা শিক্ষিত চাকরিপ্রত্যাশী যুবপ্রজন্ম করোনাকালীন ক্ষতিগ্রস্ততার জন্য চাকরিতে প্রবেশের বয়স সংক্রান্ত প্রণোদনা প্রাপ্তির যৌক্তিক দাবি দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আপনার নিকট উপস্থাপন করতে চাই – প্রায় দেড় বছর হতে চলেছে অতিমারী করোনার জন্য তেমন কোন সরকারি চাকরির সার্কুলার নেই, চাকরির পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবার মতো পরিবেশও নেই।

সকল পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা তাদের জীবন থেকে দুইটি বছর হারাতে চলেছে। সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩০ হওয়ায় কয়েক লক্ষ তরুণ (করোনার শুরুর সময়ে যারা ২৮+ বয়সের ছিল) চাকরির পরীক্ষায় অবতীর্ণ হওয়ার সুযোগ না পেয়েই ৩০ এর গন্ডি অতিক্রম করবে।

করোনাকালীন এই ক্ষতি কিন্তু অন্যদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। যে ছেলেমেয়েরা ২৬ বছর বয়সে শিক্ষাজীবন শেষ করে সেই করোনা শুরুর সময় থেকে আশায় বসে আছে চাকরির পরীক্ষায় অবতীর্ণ হবে, তারাও এই দেড় বছর হারাতে চলেছে। সরকারি বিধি মোতাবেক প্রচলিত যে ৩০ বছর বয়স অবধি আবেদনের সুযোগ পাওয়ার কথা করোনার আঘাত কিন্তু প্রকৃতই সেই সুযোগ দিচ্ছে না।

চাকরিতে প্রবেশের বয়স শেষবারের মতো বৃদ্ধি করে ২৭ থেকে ৩০ করা হয় ১৯৯১ সালে যখন গড় আয়ু ছিল ৫৭ বছর। এই ৩০ বছরে গড় আয়ু ১৬ বছর বৃদ্ধি পেয়ে ৭৩ বছরে উন্নীত হলেও চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধি হয়নি। অন্যদিকে ২০১১ সালে অবসরের বয়সসীমা দুই বছর বৃদ্ধি করে ৫৭ থেকে ৫৯ করা হয়েছে (সম্মানিত মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৬০)।

অবসরের বয়স দুই বছর বৃদ্ধি হওয়ায় চাকরিতে প্রবেশের বয়স দুই বছর বৃদ্ধি পেলে সেটা আর সাংঘর্ষিক হওয়ার সুযোগ থাকেনা। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে এখনও সেশনজট বিদ্যমান যার অন্যতম উদাহরণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সাত কলেজ।

মাস্টার্স সম্পন্ন করতে যেখানে গড়ে ২৬ বছরের অধিক সময়ও লেগে যায় সেখানে করোনার জন্য আরও ২ বছর হারানো যুবপ্রজন্মের জন্য অশনিসংকেত বহন করে। আপনি নিশ্চয় অবগত আছেন যে বিসিএস স্বাস্থ্য, বাংলাদেশ জুডিশিয়ারি সার্ভিস এবং বিভিন্ন কোটায় ৩২ বছর অবধি চাকরিতে প্রবেশের সুযোগ রয়েছে যেটা সাধারণের জন্য ৩০।

করোনার এই বিষাক্ত ছোবল সাধারণ চাকরিপ্রত্যাশীদের জীবন থেকে ২ বছর কেড়ে নেওয়ার পথে ধাবিত হচ্ছে। হতাশা ও অসহায়ত্বের দরুণ আত্মহত্যার মতো একাধিক ঘটনা মিডিয়াতে সংবাদ হিসেবে এসেছে। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে প্রতিশ্রুতি প্রদানপূর্বক বয়স বৃদ্ধির বিষয়ে উল্লেখ করা হয়েছিল – ‘বাস্তবতার নিরিখে যুক্তিসংগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে’।

আমাদের অভিভাবক হিসেবে ভেবে দেখুন করোনা জীবনের যে সময় কেড়ে নিচ্ছে এর চেয়ে বড় বাস্তবতা আর কি হতে পারে! প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, করোনাকালে চাকরির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরিমাণ ৮৭ শতাংশ কমে ১৩ শতাংশ এ উপনীত হয়েছে; করোনা চলাকালীন ২০২০ সালে একটি প্রজ্ঞাপন দিয়ে বলা হয়েছিল যাদের বয়স শেষ হয়ে যাচ্ছে আসন্ন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিগুলোতে তাদের আবেদনের সুযোগ দেওয়া হবে।

আপনার জ্ঞাতার্থে আমরা জানাতে চাই যে বেশিরভাগ বিজ্ঞপ্তিগুলোতেই সেই নীতি অনুসরণ করা হয়নি; হাতেগোনা কয়েকটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতেই সুযোগ দেওয়া হয়েছিল যেগুলো বেশিরভাগই তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির চাকরির। ১ দিন, ৫ দিন, ১৫ দিন, ১ মাসের জন্য ৪৩তম বিসিএস এর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে আবেদন করতে পারেন নাই এমন অসংখ্য চাকরিপ্রত্যাশী ছেলেমেয়ে আছে যারা ফেসবুক লাইভে এসে করুণভাবে আপনার নিকট আকুতি জানিয়েছে।

আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতের আসাম রাজ্যে ২০২০ সালের শেষের দিকে করোনাকালীন ক্ষতিগ্রস্ততা বিবেচনা করে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা দুই বছর বৃদ্ধি করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, এই যুব প্রজন্মের ভরসার শেষ আশ্রয়স্থল হিসেবে আপনাকে জানি ও মানি।

অসংখ্য ছেলেমেয়ে যারা প্রতিনিয়ত ‘করোনাকালীন প্রণোদনারূপে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩২ চাই’ দাবি জানাচ্ছে তাদের বক্তব্যে একটা বিষয় উঠে আসছে যে – আপনি পরিস্থিতির ভয়াবহতা ও আমাদের অসহায়ত্ব উপলব্ধি করবেন এবং এই প্রজন্মকে বিমুখ করবেন না।

করোনাকালীন ভয়াবহতা বিবেচনায় আপনি সকল শ্রেণীপেশার মানুষের জন্য প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন। দয়া করে আমাদের এই ক্ষতিগ্রস্ততা বিবেচনা করে আপনি আমাদের পাশেও দাঁড়াবেন আমরা প্রত্যাশা করি। এক মাসের অধিক সময় ধরে আমরা যারা করোনাকালীন প্রনোদনা হিসেবে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩২ চাই’ দাবি জানিয়ে কর্মসূচি পালন করে আসছি।

তারা কোন প্রকার আন্দোলন সংগ্রাম তথা এমন কোন কর্মসূচিতে যাইনি যাতে সরকারকে বিব্রত হতে হয় বা জনজীবনে সমস্যার সৃষ্টি হয়। আমরা আপনার দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য গঠনমূলক প্রক্রিয়ায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে গত ১২ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলন করেছি এবং ১৩ এপ্রিল ‘শিক্ষামন্ত্রী ও জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী’ মহোদয় বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছি।

এমতাবস্থায় বাংলাদেশের যুব প্রজন্মের অভিভাবক হিসেবে আপনার নিকট করুণ আকুতি এই যে আপনি দয়া করে এই প্রজন্মকে ক্ষতিগ্রস্ততা ও হতাশায় নিমজ্জিত হবার হাত থেকে বাঁচান, একটি লাইফলাইন প্রদান করুন তথা পরিস্থিতির ভয়াবহতা বিবেচনা করে দ্রুততম সময়ে করোনাকালীন প্রণোদনারূপে সকলের জন্য চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩২ এর প্রজ্ঞাপন জারি করুন।