এনজিওকর্মীর সঙ্গে পরকীয়া ছিল বাবুলের: মিতুর বাবা

বাংলাদেশ

সাবেক এসপি বাবুল আকতারের পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি জেনে গিয়েছিলেন স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এ নিয়ে দুজনের দাম্পত্য কলহ চলছিল। একপর্যায়ে বাবুল ও তার পরকীয় প্রেমিকা মিতুকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন।

এসব অভিযোগ চট্টগ্রামে খুন হওয়া মাহমুদা খানম মিতুর বাবা সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেনের।বুধবার বেলা দুইটার দিকে চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানায় বাবুলসহ আটজনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়েরের পর তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

মোশারফ হোসেনের দাবি, বাবুল আকতারের সঙ্গে এক এনজিও কর্মীর পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় তার মেয়ের সঙ্গে বাবুলের ঝগড়া হয়। মৃত্যুর আগে মিতু বিষয়টি তাদের জানিয়েছিলেন। পারিবারিকভাবে তারা বিষয়টি সমাধানেরও চেষ্টা করেছেন। কিন্তু সফল হননি।

একপর্যায়ে বাবুল ও ওই নারী মিতুকে মেরে ফেলার হুমকি দেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি। মিতুর বাবা বলেন, মামলায় বাবুলসহ আটজনকে আসামি করা হয়েছে। বাকি সাতজনের নাম আগের মামলায় পুলিশের তদন্তে এসেছিল।

আসামিরা হলেন বাবুল আক্তার, কামরুল সিকদার মুসা, এহতেশামুল হক ভোলা, মোহাম্মদ ওয়াসিম, মোহাম্মদ আনোয়ার, মোহাম্মদ শাহজাহান, মোহাম্মদ সাজু ও মোহাম্মদ কালু।

মোশাররফ হোসেন আরও বলেন, বাবুলের পরিকল্পনায় আসামিরা তার মেয়েকে হত্যা করেন। ২০১৩ সালে বাবুল যখন কক্সবাজারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত ছিলেন, তখন এনজিওর এক মাঠকর্মীর সঙ্গে তার সম্পর্ক হয়। বিষয়টি মিতু জেনে যাওয়ায় ঝগড়া হয়।

হত্যাকাণ্ডের পর মোশাররফ হোসেনের বাসায় ছিলেন বাবুল। তাহলে মামলা করতে দেরি কেন করলেন? এমন প্রশ্নের জবাবে মিতুর বাবা বলেন, বাবুলের বিষয়ে তিনি পরে নিশ্চিত হয়েছেন। একই ঘটনায় দুটি মামলা হয় না। পিবিআই চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়ার পরে তিনি মামলা করেছেন।

পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভূঁইয়া তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘মামলাটি তদন্তের জন্য পিবিআই চিঠি দিয়েছে। আমরা মামলাটি পিবিআইকে দিয়ে দিচ্ছি।’

২০১৬ সালের ৫ জুন ভোরে চট্টগ্রাম শহরের জিইসি মোড়ে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় মাহমুদা খানম ওরফে মিতুকে।

ওই ঘটনায় বাদী হয়ে বাবুল আক্তার পাঁচলাইশ থানায় মামলা করেন। তাতে তিনি বলেন, তার জঙ্গিবিরোধী কার্যক্রমের জন্য স্ত্রী আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু হয়ে থাকতে পারেন। তবে সপ্তাহ দুয়েকের মাথায় মাহমুদা হত্যার তদন্ত নতুন মোড় নেয়। অব্যাহতভাবে মাহমুদার মা–বাবা এই হত্যার জন্য বাবুল আক্তারকে দায়ী করে আসছেন।

পিবিআই আজ জানায় মিত্যু হত্যায় বাবুল জড়িত হওয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এরপরই আগের মামলার চার্জশিট ও নতুন করে মামলা দায়ের হলো।

শিহাবের কথা মনে হলে কেঁদে উঠছে ইউএনওর মন

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবরীন চৌধুরী দাফতরিক কাজে ব্যস্ত। মঙ্গলবার (৫ মে) বিকেল ৪টার ঘটনা। হঠাৎ নিষ্পাপ চেহারা আর আদুরে একটি শিশু খালি পায়ে ইউএনওর কক্ষে প্রবেশ করে। শিশুর হাতে ছিল একটি ময়লা থলে।

কক্ষে ঢুকেই সে ইউএনওর কাছ থেকে সাহায্য চেয়ে হাত বাড়িয়ে দেয়। এতে অবাক দৃষ্টিতে তার দিকে তাকিয়ে ছিলেন ইউএনও সাবরীন চৌধুরী। শিশুটির নাম শিহাব।কথা বলে জানতে পেরে সারাদিন অভুক্ত শিহাবকে খাবারের ব্যবস্থা করে দেন।

দাফতরিক কাজ শেষে শিহাবকে নিয়ে ইউএনও বেরিয়ে পড়েন দক্ষিণ চরমোহনা ইউসুফ মেমোরিয়াল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকায়। শিহাব বলেছিল সে স্কুলটির দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র।

ঈদের নতুন জামার লোভে শিহাব সবার কাছে টাকা চেয়েছে শুনে পথে গাড়ি থামিয়ে তার পছন্দমতো শার্ট-প্যান্ট ও এক জোড়া জুতা কিনে দিয়েছেন ইউএনও। অবশেষে শিহাবের মুখে শোনা স্কুলের সামনে পৌঁছালো ইউএনওর গাড়ি। কিন্তু সেখানে কেউই শিহাবকে চেনে না।

অনেক বুঝানোর পর শিহাব বলে ওঠে তার বাড়ির নাম ‘বকুল হুজুরের বাড়ি/জিনাত আলী হুজুরের বাড়ি।’ সেখানকার লোকজন তখন ঠিকানাটি নিশ্চিত করে। সন্ধ্যার আগেই শিহাবের বাড়ি সদর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়নে উপস্থিত হন ইউএনও। মূলত শিহাবের বাড়ি রায়পুর নয়।

সেখানে গিয়ে ইউএনও জানতে পারেন, শিহাবের বাবা ৬-৭টি বিয়ে করেছেন। অনেক আগেই তাদের ছেড়ে চলে গেছেন। তার মা কোনোমতে মানুষের বাড়িতে কাজ করে শিহাবকে নিয়ে বেঁচে আছেন। কিন্তু ছেলে ভিক্ষা করুক এটি তার মা কখনো চাননি।

এরমধ্যেই তার মা ছেলেকে পাওয়া গেছে শুনে ছুটতে ছুটতে বাড়ি আসেন। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ছেলের কর্মকাণ্ডে তিনি কাঁদতে থাকেন। এতে কেঁদে ওঠে ইউএনওর মনও। শিশুটির পুরো ঘটনাতে ইউএনওর মনে প্রশ্ন জাগে- এইটুকু শিশুর কাছে মাতৃমমতা প্রবঞ্চিত হলো?

এত ছোট বয়সে এতটা মিথ্যা সে কিভাবে রপ্ত করলো? এত ছোট বয়সেই এতটা সাহসিক সে কিভাবে হলো? এমন সব আবেগ আর প্রশ্নজড়িত শব্দ দিয়ে তৈরি বাক্যগুলো দিয়ে মঙ্গলবার (৫ মে) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে ইউএনও তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে পোস্ট করেন।

ইউএনও সাবরীন চৌধুরীর পোস্টের আংশিক লেখা ছিল এরকমই, ‘অবাক দৃষ্টিতে তার দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম, কার সাথে এসেছ, এতো ছোট বয়সে তুমি ভিক্ষাবৃত্তিতে কেন নেমেছ, কে শিখিয়ে দিয়েছে, বাবা-মা কোথায়, বাড়ি কোথায় ইত্যাদি।

উত্তরে শিহাব জানালো, সে একাই এসেছে, বাড়ি রাখালিয়া, বাবা নেই, মার নাম জানে না। খুব সকালে খেয়েছে, ক্ষুধা লেগেছে। শুনেই তাৎক্ষণিক তার খাবারের ব্যবস্থা করলাম। শিশুটিকে সামনে বসিয়ে হাতের কাজগুলো গুছানোর ফাঁকে মনে মনে চিন্তা করেছিলাম, কেমন মা?

কোলের শিশুটিকে এই পেশায় নামিয়েছে, কী এমন অবস্থা যে তাকে একলা ছেড়ে দিতে হলো। শিশুটির কোনো দুর্ঘটনা ঘটতে পারত। খারাপ লোকের খপ্পরে পড়তে পারত। মাতো নিজেও আসতে পারত। এই শিশুটি বাড়ির ঠিকানা চেনে না, সে বাড়ি ফিরবে কিভাবে। আরও কত কী!

সন্ধ্যায় শিহাব নিজ আঙিনায় পা রাখতেই আশপাশে তার সমবয়সী সব শিশু দৌড়ে এল। সেও মহাখুশি। কিন্তু তার ছোট ঘরটিতে তালা ঝুলছিল। তাতে তার ভ্রুক্ষেপ নেই। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে আশপাশের বাড়ির লোকজনকে ডাকা হলে মোটামুটি সবাই সাড়া দিল।এতক্ষণ পর্যন্ত শিশুটির জন্য একটা শঙ্কা, একটা কষ্ট হচ্ছিল।

কিন্তু যখন জানতে পারলাম, শিশুটি আরও ছোট বয়স থেকেই এভাবে একা একা ভিক্ষা করতে বেরিয়ে যায়। বানিয়ে বানিয়ে কথা বলে, কখনো চাঁদপুর, কখনো রামগতি চলে যায়। এর জন্য অনেক মারধর খেয়েছে তবুও সংশোধন হয়নি। বাবা ৬-৭টা বিয়ে করে এদের ফেলে রেখে চলে গিয়েছে।

তার মা এদিক-সেদিক টুকটাক কাজ করে বেড়ায় কিন্তু ছেলে ভিক্ষা করুক তা চায় না। বুঝলাম, পরিবার এবং পরিবেশ সত্যিকার অর্থেই একটি শিশুর বেড়ে ওঠার পেছনে কার্যকর ভূমিকা রাখে। তবে আল্লাহ যেন শিশুটিকে হেদায়েত করে মায়ের কষ্ট ও মমতাকে বোঝার বোধটুকু দান করে।’

ইউএনও সাবরীন চৌধুরী জানান, শিশুটিকে ভালো করে বুঝিয়েছি। তার মাকেও একটু সতর্কতা বাড়ানোর জন্য বলা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর উপহার খাদ্যসামগ্রী তার মায়ের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। ভালো কোনো কিছুর ব্যবস্থা করে দিতে পারার আশায় তাদের ঠিকানা নিয়ে আসা হয়েছে।