ঘরে ৩ স্ত্রী, তারপরও অন্যের বউ নিয়ে পালালেন ‘হুজুর’

বিনোদন

ঘরে তার তিন স্ত্রী। এদের মধ্যে তৃতীয় স্ত্রী নিঃসন্তান। বাকি দুই স্ত্রীর মোট ৭ ছেলে-মেয়ে। বয়সও ৬০ ছুঁয়েছে। এই বয়সে তিন স্ত্রী এবং সাত সন্তানকে রেখে অন্যের স্ত্রীকে নিয়ে পালালেন রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার হামিরকুৎসা গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাক বাচ্চু (৬০)। তিনি স্থানীয় সমজিদের সাবেক ইমাম। এলাকায় তাকে সবাই বাচ্চু হুজুর নামেই চেনে।

পরিবারের সম্মান এবং লোক লজ্জার ভয়ে এতদিন বিষয়টি প্রকাশ করেনি কেউ। গত ১১ এপ্রিল সন্ধ্যায় ওই নারীর ছেলে ছেলে (২২) বাগমারা থানায় একটি অপহরণের অভিযোগ দায়ের করেছেন। মামলার কোনো অগ্রগতি না হওয়ায় বুধবার (২১ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ওই নারী ছেলে সাংবাদিকদের অবহিত করেন।

মামলার বাদী ওই নারীর ছেলে বলেন, ‘ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আমরা তাদের সন্ধান চাই।’ বাচ্চু উপজেলার গোয়ালকান্দি ইউনিয়নের বাগিচাপাড়া এলাকায় মসজিদের ইমাম ছিলেন এবং কবিরাজি করতেন। ওই নারীর স্বামী ছিলেন তার রোগী। ওই প্যারালাইসিস রোগীর চিকিৎসা দিতে গিয়েই দুজনের পরিচয়।

এক সময় নিয়মিত যাতায়াত শুরু করেন ওই কবিরাজ। বিষয়টি ছেলেদের সন্দেহ হওয়ায় তাকে বাসায় আসতে নিষেধ করেন। গত ১১ এপ্রিল ওই নারী তার বাবার বাড়ি বেড়াতে যাবেন বলে ঘর থেকে বের হন। কিন্তু পরে আর বাড়ি ফিরেননি। অনেক খোঁজাখুঁজির পর জানা গেছে বাচ্চু হুজুর তাকে ভাগিয়ে নিয়ে গেছেন।

নারীর বড় ছেলে জানান, বাচ্চু হুজুরকে বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে নিষেধ করার পরও তিনি বাড়ির আশপাশে ঘোরাঘুরি করতেন। তিনি পানিপড়া ও তাবিজ-কবজ করতে জানেন। আমার মাও তার তাবিজ-কবজ ও পানি পড়ার খপ্পরে পড়েছেন। এছাড়া বাবার অসুস্থতার সুযোগ নিয়ে মাকে প্রভাবিত করে বাচ্চু হুজুর নগদ ২ লাখ ৪০ হাজার টাকাসহ নিয়ে যান।

সব বন্ধ, পেট তো বন্ধ নেই, কামড় দেয় ক্ষুধাসব বন্ধ, পেট তো বন্ধ নেই, কামড় দেয় ক্ষুধা

রাজধানীর তোপখানা রোডের যে পাশে জাতীয় প্রেসক্লাব, ঠিক তার উল্টো দিকেই মুদ্রাক্ষরিকদের (টাইপরাইটার) ছোট ছোট দোকান। একই সঙ্গে আইনজীবীদের সহকারী হিসেবে নোটারি পাবলিক করিয়ে দেওয়ার কাজও করেন তাঁরা। বিনিময়ে আইনজীবীরা কিছু পান, বাকিটা নেন এসব সহকারী।

তবে দোকান মানে একটা কাঠের চেয়ার, একটা টেবিল আর একটা টুল। গতকাল মঙ্গলবার খাঁ খাঁ দুপুরে সেখানে গিয়ে দেখা যায়, কাঠের চেয়ার-টেবিলগুলো ওলটানো। শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা এগুলো। মুদ্রণজগতে কম্পিউটারের প্রচলন শুরু হওয়ার পর থেকে এমনিতেই মুদ্রাক্ষরিকদের কাজ ও কদর কমে আসছে।

করোনাভাইরাস আসার পর তা এখন একেবারেই বন্ধ হয়ে যাওয়ার জোগাড়। ১৪ এপ্রিল দেশব্যাপী সর্বাত্মক লকডাউন শুরুর পর থেকে মুদ্রাক্ষরিকেরা সবাই ঘরবন্দী। কথা বলার একজন লোকও পাওয়া যায়নি গতকাল। সেখানে পাওয়া যায় মো. আকরামুল ইসলাম নামের একজনের, যাঁর একটি দোকান রয়েছে।

ওই দোকানে তিনি ফটোকপি ও মোবাইলে টাকা রিচার্জের পাশাপাশি মোবাইলে আর্থিক সেবা দাতা (এমএফএস) প্রতিষ্ঠানের এজেন্ট হিসেবেও কাজ করেন। বিকাশ, নগদ, রকেটের দোকান খুলতে যেহেতু বাধা নেই, তাই তিনি খুলেছেন। কিন্তু গ্রাহক নেই। তিনি জানান, ১৯৭৩ সালে ৬৫ জন মুদ্রাক্ষরিক এখানে বসা শুরু করেন। এখন আছেন ৩৪ জন।

তোপখানা রোড পেশাজীবী মুদ্রাক্ষরিক কল্যাণ সমিতির সদস্য তাঁরা। কাজ না থাকায় লোকগুলো খুবই কষ্টে আছেন। আকরামুল ইসলাম জানান, কাজ নেই, গ্রাহকও নেই। তবু কাজের আশায় গতকাল ঢাকার মানিকনগর থেকে পায়ে হেঁটে তোপখানা রোডে এসেছিলেন টাইপরাইটার নূরনবী হোসেন। কিন্তু সেই আশার গুড়ে বালি।

কিছুক্ষণ বসে থেকে আবার হেঁটে হেঁটে চলে যান তিনি। কারও সঙ্গে যোগাযোগ করতে চাই বলায় আকরামুল পুরোনো মুদ্রাক্ষরিক আলী আহমেদের মোবাইল নম্বর দেন। বিকেলে ফোন করে পরিচয় দিতেই আলী আহমেদ বলেন, ‘৩০ বছর ধরে তোপখানা রোডে আসছি। এমন খারাপ সময় কখনো আসেনি, যদিও অনেক আগে থেকেই আমাদের দিন খারাপ হয়ে আছে।

টাইপ করতে কেউ আসেন না। সব খেয়ে ফেলেছে কম্পিউটার। তবে মাঝে মাঝে নোটারি করতে লোক আসেন। আইনজীবীদের মাধ্যমে তা করাতে হয়। গ্রাহকদের কাছ থেকে যা পাওয়া যায়, তা থেকে আইনজীবীরা আমাদের একটা অংশ দেন। তাতে কোনো দিন ২০০ টাকা, কোনো দিন ৩০০ টাকা পাই।

ভাগ্য ভালো থাকলে ৫০০ টাকাও পাওয়া যায় কোনো কোনো দিন। এই আয় থেকে চেয়ার-টেবিল নিয়ে বসার একটা ভাড়াও দিতে হয় সিটি করপোরেশনকে।’ কিন্তু এখন তো সবই বন্ধ। ফলে দোকান ভাড়াই কী দেবেন, আবার বাড়ি ভাড়াই কী দেবেন—তা নিয়ে চিন্তিত আলী আহমেদ। তিন বেলা খাওয়ার ব্যবস্থা কীভাবে করবেন—সেই চিন্তায় দিশেহারা তিনি।

বলেন, ‘জীবনে আর কিছু শিখিনি। বয়স হয়েছে, শেখার সুযোগও নেই আর। কিন্তু পেটটা তো আছে। পেট তো বন্ধ নেই, কামড় দেয় ক্ষুধা।’ আলী আহমেদের পাঁচ ছেলেমেয়ের মধ্যে দুই মেয়ের বিয়ে হয়েছে। এক মেয়ে অনার্স প্রথম বর্ষে পড়ছেন। ১০ বছর বয়সী একটা প্রতিবন্ধী ছেলে আছে। তিনি বলেন, ‘শুনেছি, প্রতিবন্ধী বাচ্চাদের ভাতা দেয় সরকার। আমার ছেলেটা পায় না।’