ভারতের কারাগারে কুরআন তিলাওয়াতের কারনে বেঁচে ছিলেন: ফারুক আব্দুল্লাহ

আন্তর্জাতিক

২০১৯ সালের আগস্টে ভারতের সংবিধান থেকে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল উগ্র হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকার। বাতিলের পরপরই উপত্যকাটি শুরু করে ভয়াবহ দমনপীড়ন। সেসময় রাজনৈতিক নেতাদের থেকে শুরু করে স্বাধীনতাকামীদের আটক করে রাখে ভারতের নির্মম কারাগারে। শুরু করে উপত্যকায় এক নতুন যজ্ঞ।

সেবছরের ৫ আগস্ট থেকে কয়েক মাস ধরে ভারতের নির্মম কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্স (এনসি) এর সভাপতি ফারুক আবদুল্লাহকেও।

সংবাদমাধ্যম দি হিন্দুকে এক সাক্ষাতকারে তিনি বন্দি জীবনের স্মৃতিচারণ করে বলেন, আমার সাথে অপরাধীর মতো আচরণ করা হয়েছে। আমাকে চোর বলা হয়েছে, কঠোর আইন প্রয়োগ করা হয়েছে। যেন আমি সন্ত্রাসী। আমি একজন এমপি, অথচ ফোনও দেওয়া হয়নি। মনে হয়েছে, সন্ত্রাসী হলে বোধহয় বেশি সুবিধা পেতাম।

তিনি বলেন, বন্দী সময়ে দরজায় তার মেয়েকে পড়ে যেতে দেখাটা ছিল তার জীবনের দ্বিতীয় সবচেয়ে কঠিন মুহূর্ত।

ড. ফারুক আব্দুল্লাহ বলেন, চিকিৎসার জন্য আমাদেরকে কয়েক দিন ডাক্তারের কাছে যেতে হয়েছিল। তা ছিল সবচেয়ে মর্মান্তিক ঘটনা। আমাকে সব কিছু বহন করতে হতো। কারাগারে কুরআনের কারণেই আমি বেঁচে আছি। আমি প্রতিদিন কুরআন তিলাওয়াত করি।

সূত্র: দি হিন্দু

আরো পড়ুন-দুবাই কুরআন প্রতিযোগিতার জন্য বাংলাদেশের হাফেজা আয়েশা সিদ্দিকা নির্বাচিত

আওয়ার ইসলাম: দুবাই আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগীতার বাছাই পরীক্ষায় হাফেজা আয়েশা সিদ্দিকা নির্বাচিত হয়েছেন।

গত ২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং তারিখে বাংলাদেশ ধর্মমন্ত্রণালয়ের অধীনে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাইতুল মোকাররমে অনুষ্ঠিত ৫ম আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগীতার বাছাই পরীক্ষায় ১ম স্থান অধিকার করে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন এ ক্ষুদে হাফেজা।

জানা গেছে, যাত্রাবাড়ী সাইনবোর্ডে অবস্থিত মারকাজুত তাহফিজ ইন্টাঃ মাদরাসার মহিলা শাখার ছাত্রী হাফেজা আয়েশা সিদ্দিকা। মাদরাসার পরিচালক হাফেজ নেছার আহমাদ আন নাছিরী।

বিজয়ী প্রতিযোগী আয়েশা যেনো দুবাই গিয়ে সকল দেশকে পিছনে ফেলে বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকা বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে পারেন সেজন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, এর আগেও অত্র মাদরাসার মহিলা বিভাগ থেকে হাফেজা ফারিহা তাসনিম জর্ডানে ৬০ টি দেশকে হারিয়ে প্রথম স্থান অধিকার করেছিল।

তাছাড়া এ মাদরাসার বালক শাখা থেকে মক্কা মদিনাসহ আরও ১০৩ টি দেশকে হারিয়ে বাংলাদেশের জন্য ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বিজয় নিয়ে এসেছিল হাফেজ তরিকুল ইসলাম।

আর মক্কা শরিফে অনুষ্ঠিত বিশ্ব হিফজুল কুরআন প্রতিযোগীতায় আরবদের হারিয়ে মসজিদে হারামে বিশ্বকে অবাক করে অন্ধ হাফেজ তানভির হোসেন ও সাদ সুরাইল বাংলাদেশের জন্য বিজয় নিয়ে এসেছিল।

এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালেও হাফেজ সাইফুর রহমান ত্বকি জর্ডানে প্রথম হয়ে বাংলাদেশের মান উজ্জল করেছেন।

এ পর্যন্ত বিভিন্ন রাষ্ট্রে মারকাজুত তাহফিজ ইন্টাঃ মাদরাসার প্রায় অর্ধশত ছাত্র-ছাত্রী বিজয় অর্জন করেছে। মারকাজুত তাহফিজ ইন্টাঃ মাদরাসার ছাত্রদের এই বিজয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল,

মরহুম মাননীয় ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ সংবর্ধনা দিয়েছেন। এছাড়াও পবিত্র কাবার ইমাম শায়খ আব্দুর রহমান সুদাইসি সহ বিশ্বের বরেণ্য ওলামাগণ তাদের সংবর্ধনা দিয়েছেন।