স্নায়ুযুদ্ধের মুখোমুখি বিশ্বের দুই শক্তিধর রাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক

মস্কো-ওয়াশিংটন উত্তেজনার মধ্যেই প্রশান্ত মহাসাগরের আকাশসীমায় একটি মার্কিন গোয়েন্দা বিমানকে তাড়া করে হটিয়ে দিয়েছে রাশিয়া। একই সঙ্গে নিষেধাজ্ঞার প্রতিশোধ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের ১০ কূটনীতিককে বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে পুতিন প্রশাসন। এদিকে, রাশিয়ার সম্ভাব্য যে কোনো হামলার জবাব দিতে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইউক্রেন।

যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ কৌশলগত গোয়েন্দা বিমান আরসি-ওয়ান থার্টি ফাইভ শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) রাশিয়ার আকাশসীমার দিকে এগিয়ে যেতে থাকলে সেটাকে বাধা দেয় রুশ যুদ্ধবিমান মিগ থার্টি ওয়ান। প্রশান্ত মহাসাগরের আকাশসীমায় তাড়া খেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিমানটি ওই এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয়।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, মার্কিন বিমানের উপস্থিতি টের পেয়ে ঘাঁটি থেকে মিগ-থার্টি ওয়ান উড়ে যায়। তাদের ধাওয়ায় মার্কিন বিমানটি রুশ সীমান্ত এলাকা থেকে চলে যাওয়ার পর মিগ থার্টি ওয়ান নিরাপদে ফিরে আসে। এএফপি ও বিবিসি জানায়, নির্বাচনে হস্তক্ষেপ, সাইবার হামলা ও ইউক্রেনে রুশ সেনা সমাবেশ নিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বন্দ্ব তুঙ্গে।

দীর্ঘদিন পর আবারো স্নায়ুযুদ্ধের মুখোমুখি দেশ দুটি। সবশেষ বৃহস্পতিবার রাশিয়ার ১০ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। প্রতিশোধ হিসেবে এবার ১০ মার্কিন কূটনীতিককে বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে পুতিন প্রশাসন। শুধু তাই নয়, আট শীর্ষ মার্কিন কর্মকর্তাকে কালো তালিকাভুক্ত করারও ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া।

এদিকে, রাশিয়া সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে ইউক্রেনের সেনাদের চলমান বিরোধের জের ধরে সীমান্তে নিজেদের সেনা জোরদার করেছে ইউক্রেন। রাশিয়ার যে কোনো হামলা মোকাবিলায় যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে দেশটি। সে লক্ষ্যে সীমান্তে সশস্ত্র প্রতিরোধও গড়ে তোলার কথা জানিয়েছে কিয়েভ।