ফিলিস্তিন ইস্যুতে ওআইসির ভূমিকা নিয়ে কী বলছেন এরদোগান?

আন্তর্জাতিক

প্রকাশ্যে বা গোপনে যারা ইসরাইলি রক্তপাতকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে তাদের সতর্ক করে হুশিয়ারি দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। শুক্রবার নিজ দল একে পার্টির ভার্চুয়াল সভায় তিনি বলেন, যারা চুপ থেকে কিংবা প্রকাশ্যে ইসরাইলি রক্তপাতকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে, জেনে রাখা উচিত, একদিন তাদেরও পালা আসবে।

এরদোগান বলেন, ওআইসি যদি ইসরাইলি হামলার বিরুদ্ধে জোরালে অবস্থান না নেয় তাহলে এই জোট তার নিজের অস্তিত্বকেই বিনষ্ট করবে। এ সময় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি। তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, পুরো দুনিয়া ইসরাইলি ধ্বংসযজ্ঞ উপেক্ষা করে গেলেও তুরস্ক কখনও এটি মেনে নেবে না।

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড গাজায় ইসরাইলি বিমান হামলায় ক্ষুব্ধ এরদোগান জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে শান্তিপূর্ণ রেজ্যুলেশনের মাধ্যমে সমাধানেরও আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ফিলিস্তিনিদের ওপর সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ইসরাইলের হামলার ঘটনায় আমি ভারাক্রান্ত ও ক্ষুব্ধ। ফিলিস্তিনের শহরগুলোতে ইসরাইলের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ও মানবতার সম্মান রক্ষার জন্য জেরুজালেমের পাশে দাড়ানো কর্তব্য।

এর আগে ফিলিস্তিনিদের রক্ষার জন্য একটি আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা বাহিনী তৈরির বিষয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে কথা বলেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান। অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ইসরাইলের অব্যাহত বিমান হামলার মুখে এই দুই নেতা টেলিফোনে কথা বলেন। ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরাইলি বাহিনীর হামলার ৬ষ্ঠ দিন চলছে। এ হামলা আরো জোরদার করেছে দখলদার বাহিনী।

গত সোমবার থেকে গাজা সীমান্তে ইসরাইলি বাহিনীর বিমান হামলার পর এখন ভূমি থেকে আর্টিলারি ফায়ার ও ট্যাংক দিয়ে গোলা ছোড়া হয়েছে। শুক্রবার রাতে ৪০ মিনিটে গাজার ১৫০টি লক্ষ্যবস্তুতে ৪৫০টি ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছে তারা। ইসরাইলের প্রতিরক্ষা বাহিনীর মুখপাত্র আভিচায় আদ্রায়ি শুক্রবার টুইটারে এ তথ্য জানিয়েছেন।