বাংলাদেশকে কম দামে টিকা দিল চীন, তোলপাড় শ্রীলংকায়

আন্তর্জাতিক

দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশে চীনের সিনোফার্মের টিকার আলাদা আলাদা দাম নির্ধারণ করেছে দেশটি। তবে দাম একেক দেশে একেক রকম হওয়ায় এই অঞ্চলের সহযোগীদের মধ্যে অস্বস্তি শুরু হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, বাংলাদেশকে প্রতি ডোজ ভ্যাকসিন ১০ মার্কিন ডলারে চীন। আর শ্রীলংকাকে দিয়েছে ১৫ ডলারে। এ নিয়ে উভয় দেশেই বিতর্কের জন্ম দিয়েছে।

সিনোফার্মের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের দেড় কোটি ডোজ কিনছে বাংলাদেশ। মন্ত্রিপরিষদের ভ্যাকসিন ক্রয় কমিটি চীনের এই ভ্যাকসিন কেনার অনুমোদন দিয়েছে। অর্থমন্ত্রী আ. হ. ম মুস্তফা কামালের নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে চীনা ভ্যাকসিন কেনার বিষয়টি অনুমোদন দেয়। এর পর এক কর্মকর্তা জানিয়েছে, সিনোফার্মের প্রতি ডোজ ভ্যাকসিন ১০ ডলারে কিনছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের গণমাধ্যমে চীনের সিনোফার্মের ভ্যাকসিনের এই দাম প্রকাশের পর শ্রীলংকায় ব্যাপক আলোড়ন তৈরি হয়েছে। একই ভ্যাকসিনের প্রতি ডোজ ১৫ ডলারে কিনছে শ্রীলংকা। তবে চীনের সিনোফার্মের ভ্যাকসিন ডোজের মূল্য প্রকাশে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালিক। তিনি বলেছেন, ক্রয় সংক্রান্ত কমিটি ভ্যাকসিন কেনার প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়ায় আমরা আশা করছি খুব শিগগিরই দুই দেশের মাঝে চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে।

অন্যদিকে, শ্রীলংকার স্থানীয় দৈনিক ডেইলি মিরর দেশটির ওষুধ উৎপাদন, সরবরাহ ও নিয়ন্ত্রণবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক চান্না জয়াসুমানার বরাত দিয়ে বলেছে, বাংলাদেশকে প্রতি ডোজ ভ্যাকসিন ১০ ডলারে দিতে বেইজিং এবং ঢাকার মধ্যে এ ধরনের কোনো চুক্তিই হয়নি। বাংলাদেশের ভ্যাকসিন কেনার এই চুক্তি এখনো আলোচনাধীন রয়েছে।

ডেইলি মিরর চীনের সিনোফার্মের কেনা শ্রীলংকার ভ্যাকসিনের দামের ব্যাপারে বলেছে, সিনোফার্মের ভ্যাকসিনের ২ কোটি ডোজ আগামী মাসে শ্রীলংকায় পৌঁছাতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। লংকান এই দৈনিক বলছে, শ্রীলংকা প্রতি ডোজ সিনোফার্ম ভ্যাকসিন ১৫ ডলারে কিনছে। অন্যদিকে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রতি ডোজ ভ্যাকসিন মাত্র সাড়ে ৫ ডলারে কিনেছে শ্রীলংকা।

ভ্যাকসিন নিয়ে বিতর্কে মুখ খুলেছে শ্রীলংকার সরকারও। দেশটির স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের মহাপরিচালক ডা. আসেলা গুনাওয়ার্দেনা ভ্যাকসিনের দাম নিয়ে শুরু হওয়া বিতর্কের ব্যাপারে বলেছেন, সরকার সিনোফার্মের ভ্যাকসিন সর্বনিম্ন দামেই পেয়েছে। কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনগুলোর দাম ১৮ থেকে ৪০ ডলারের মধ্যে। বিভিন্ন কারণে ভ্যাকসিনের দামে ভিন্নতা রয়েছে।

কলম্বোয় নিযুক্ত চীনা দূতাবাস এক টুইট বার্তায় বলেছে, তারা বাংলাদেশে চীনা দূতাবাস এবং সিনোফার্মের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে ভ্যাকসিনের মূল্য নির্ধারণ করেছে।এতে বলা হয়েছে, আমরা ঢাকায় চীনা দূতাবাসের পাশাপাশি সিনোফার্ম গ্রুপের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি।

আপনাদের অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, গত সপ্তাহে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী পরিষ্কার করেছেন যে, ভ্যাকসিন ক্রয়ের চুক্তি এখনো চূড়ান্ত হয়নি।সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ভুয়া সংবাদ ইতিমধ্যে ভ্যাকসিন ক্রয়ের দ্বিপাক্ষিক আলোচনার ব্যাপারে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে। এই বিবৃতির পাশাপাশি টুইটের ব্যানারে ভুয়া সংবাদ জুড়ে দিয়েছে চীনা দূতাবাস।