ইসরাইলি আগ্রাসন বন্ধ না হলে আবার যুদ্ধ শুরু হবে: হামাস

আন্তর্জাতিক

ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছে, ইহুদিবাদী ইসরাইল যদি ফিলিস্তিনে আগ্রাসন অব্যাহত রাখে তাহলে ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলনসহ বিভিন্ন সংগঠন আবার যুদ্ধ শুরু করবে।

তিউনিসিয়ার রাজধানী তিউনিসে তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদোলুকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন হামাসের অন্যতম মুখপাত্র সামি আবু জুহরি। সামি আবু জুহরি বলেন, ইহুদিবাদী ইসরাইল চুক্তির প্রতি সম্মান দেখাচ্ছে না এবং পশ্চিমতীরের শহরগুলোতে নিয়মিত আগ্রাসন চালাচ্ছে।

এছাড়া, পবিত্র জেরুজালেম আল-কুদস শহরের লোকজনকে উদ্বাস্তু করে দেয়ার গোপন মিশন এখনও চলছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে ইসরাইলের বিরুদ্ধে নতুন করে যুদ্ধ শুরু করতে পারে হামাস।

সামি আবু জুহরি বলেন, মিশরের মধ্যস্থতায় হামাস এবং ইসরাইলের মধ্যে যে দুর্বল যুদ্ধবিরতি হয়েছে হামাস তা এখনো মেনে চলছে। তবে ইসরাইলের আচরণের ওপর এর ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে।

তিনি সুস্পষ্ট করে বলেন, ইসরাইল যতক্ষণ পর্যন্ত এই যুদ্ধবিরতি চুক্তি মেনে চলবে হামাসও ততক্ষণ পর্যন্ত তা মানবে। দখলদার ইসরাইলের অপরাধমূলক তৎপরতার কারণে এই অস্ত্রবিরতি চুক্তি অনেকটাই ভঙ্গুর।

পৃথিবীতে নেমে আসা স্বর্গের শহর

পবিত্র মসজিদ আল আকসা চত্তর আর পবিত্র শহর জেরুসালেম আজ রক্তাক্ত। ফিলিস্তিনিরা রক্ত দিচ্ছে আল আকসার জন্য, জেরুসালেমের জন্য। রক্ত ঝরছে গাজায়। জেরুসালেম ছেড়ে দেওয়া কার্যত অসম্ভব। তুরস্কের বিশিষ্ট কবি সেজাই কারাকোয়ের কথায়, এটি ‘স্বর্গে নির্মিত এবং পৃথিবীতে নেমে আসা শহর’ এটি ‘আল্লাহর শহর এবং সমস্ত মানবতার শহর’ সুতরাং এটি থাকতে হবে।

যেখানে ইহুদিরা সমগ্র ফিলিস্তিনই দখল করে নিয়েছে, সেখানে মাত্র ১৪ একর জায়গার জন্য কেন এত অত্যাচার নির্যাতনের পরও ফিলিস্তিনের মুসলমানরা বারবার আল আকসা মসজিদের দিকে ধাবিত হচ্ছে?
রমজানের শেষ দিনগুলোতে, ইসরাইলি দখলদার বাহিনী আবারো মসজিদ আল-আকসা আক্রমণ শুরু করেছে।

শতাধিক ফিলিস্তিনি আহত হবার এই ন্যাক্কারজনক ঘটনাকে তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রেসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসবাদের কাজ’ বলে বর্ণনা করেন। এর নিন্দা করেছেন অন্য মুসলিম দেশের নেতারাও। গত ২ মে পূর্ব জেরুসালেমের শেখ জারাহ পাড়ায় কিছু ফিলিস্তিনি পরিবারকে জোর করে তাদের বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করার সিদ্ধান্তের পরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

৭ মে ইসরাইলি পুলিশ তারাবির নামাজের সময় মুসল্লিদের উপর হামলা চালালে এর বিস্ফোরণ ঘটে। ১০ মে, ইসরাইলি ধর্মান্ধরা ‘জেরুসালেম দিবস’ উপলক্ষে নিরাপত্তা বাহিনীতে যোগ দেয়। আর একই সময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এই ইস্যুটির কেন্দ্রে রয়েছে ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের ‘ফিলিস্তিনিদের বাড়িঘর চুরি’ করার প্রচেষ্টা।

ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে তা স্পষ্টভাবে দেখা গেছে। ইসরাইল শেখ জারাহর আশেপাশের অঞ্চলটিকে ফিলিস্তিনমুক্ত করতে চায়। গাজি সালাউদ্দিনের চিকিৎসকের নামে এর নামাকরণ করা। আর বাকি অংশ পূর্ব জেরুসালেম। আল আকসার উপর আঘাত অথবা জেরুসালেম দখলের চেষ্টা ইসরাইলের এই প্রথম নয়।

দেশটি ১৯৬৭ সালের পর থেকে পূর্ব জেরুসালেমকে ‘ফিলিস্তিনমুক্ত’ করার ধারাবাহিক নীতি অবলম্বন করেছে। এর অজুহাত দেয়া হচ্ছে ব্যক্তিদের মধ্যে সম্পত্তি নিয়ে তথাকথিত আইনী বিরোধ নিষ্পত্তি করা। ইহুদিদের তথাকথিত ‘সম্পত্তিতে’ অনুমিত প্রত্যাবর্তনের নামে ফিলিস্তিনি সম্পত্তি দখল ১৯৭২ সালে শুরু হয়েছিল এবং ১৯৯১ সাল থেকে তা বেড়েছে।

হাস্যকর বিষয় হলো, ইসরাইলের আদালত ব্যবস্থা শুধুমাত্র ইহুদিদের সম্পত্তি সম্পর্কিত আইনী দাবী করার অনুমতি দেয়। ফিলিস্তিনিরা জর্ডান থেকে অটোমান-যুগের দলিলপত্র এবং নথি উপস্থাপন করেও আদালতে হেরে যায়। ইসরাইলি আদালতগুলি আন্তর্জাতিক আইনের অধীনে অধিকৃত অঞ্চল পূর্ব জেরুসালেমের বাসিন্দাদের উপর কোন এখতিয়ার রাখে না। কিন্তু জবরদস্তিমূলকভাবে সেটিই তারা করেছে।

তথাকথিত আদালতের রায়গুলোর উপর ভিত্তি করে শেখ জারারাহে ৩৮ ফিলিস্তিনি পরিবারকে নির্বাসিত করার কাজটি জেরুসালেমের ইসরাইলি ইহুদিকরণ নীতির সর্বশেষতম কাজ। ইহুদিকরণ হলো এই অঞ্চলের বিভিন্ন মানুষ ও ধর্মের মধ্যে হাজার হাজার বছরের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানকে মুছে ফেলার একটি প্রচেষ্টা। জেরুসালেমে ইহুদিরাই একমাত্র বাস করবে তা নিশ্চিত করাই এর উদ্দেশ্য।

ইসরাইলের সম্প্রসারণবাদের নীতি বারবার মুসলিম বিশ্বের চোখের মণি আল-আকসা মসজিদকে লক্ষ্য করে। ১৯৬৯ সালের প্রথম দিকের আক্রমণগুলির মধ্যে একটি ঘটনায় একজন অস্ট্রিয়ান ইহুদিবাদী মসজিদে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল। এটি ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) ভিত্তি গড়ে তুলেছিল, যা দুর্ভাগ্যক্রমে এখন খণ্ডিত এবং মূলত অনেকটাই অকার্যকর হয়ে আছে।

আল-আকসা মসজিদে অন্যান্য হামলার মধ্যে রয়েছে, ১৯৯০-এর আল-আকসা গণহত্যা, আরিয়েল শ্যারনের আল-আকসা মসজিদের চারপাশের কিছু অংশ দখলের চেষ্টা এবং মসজিদটির নিচে ও তার আশপাশে টানেল ও খননকাজ খনন করার ঘটনা। যারা আজ ইসরাইলের নিষ্ঠুর নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করে চলেছে, তারা জায়নবাদীদের দ্বারা আল-আকসা মসজিদ দখলের অপচেষ্টার বিরোধিতা করেছে।

ফিলিস্তিনি মহিলা এবং পুরুষ যারা মসজিদে পাহারা দিয়ে দাঁড়িয়েছেন, তারা জেরুসালেমের ইহুদিকরণের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন। তারা মহা প্রতিরোধ গড়ে তুলে এবং তাদের বাড়িঘর ত্যাগ করতে অস্বীকার করে। এই রমজানে আবারো তারা আল-আকসা মসজিদটি রক্ষার জন্য জীবন দিয়েছে। দুর্ভাগ্যক্রমে, তেল আবিবের সম্প্রসারণবাদের বিরুদ্ধে সমর্থন দেবার মতো বড় কোনো শক্তি নেই।

ইসরাইল জাতিসঙ্ঘের প্রস্তাবসমূহকে পুরোপুরি উপেক্ষা করে এবং আরব সরকারগুলো স্পষ্টত ফিলিস্তিনি ও জেরুসালেমের স্বার্থের বিষয় পরিত্যাগ করেছে। পশ্চিমা সরকারগুলির ‘গভীর উদ্বেগ’ প্রকাশে ইসরাইলের সম্প্রসারণবাদের কাজে প্রভাব পড়ছে না। বর্তমান দখলদারিত্বের পরও তাদের সমর্থন অব্যাহত রয়েছে।

মুসলিম দেশগুলো খণ্ডিত এবং দাঁতবিহীন হয়ে পড়ায় ওআইসির বা আরব লিগের পক্ষে আল আকসার প্রতিরোধকারীদের পক্ষে কাজ করাও সম্ভব হচ্ছে না।
ইসরাইলকে পশ্চাদপসরণ করতে বাধ্য করতে নতুন বৈশ্বিক/আঞ্চলিক ব্যবস্থা না আসা পর্যন্ত আল-আকসা মসজিদ এবং জেরুজালেমে প্রতিরোধের শক্তিটিকে অবশ্যই বাঁচিয়ে রাখতে হবে।

নতুন বিন্যাসের যে প্রক্রিয়া চলছে তা অচিরেই একটি অবয়ব নিতে পারে। এতে মুসলিম দেশগুলো আবার শক্তি অর্জন করতে পারে। এ সময় না আসা পর্যন্ত প্রতিরোধ টিকিয়ে রাখতে হবে। যেটি ফিলিস্তিনি অবিরাম রক্ত ঝরানোর মাধ্যমে জেরুসালেম পশ্চিম তীর ও গাজায় করে যাচ্ছে।

কেন আল-আকসা এত গুরুত্বপূর্ণ
আল-আকসা ফিলিস্তিনের মধ্যে একটি ছোট এলাকা, কিন্তু প্রতীকীভাবে এটি ইসরায়েলি এবং ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সংঘর্ষের একটি বড় অংশ। আল-আকসা একটি ৩৫-একর যৌগিক চক্রের মধ্যে রূপার আস্তরণযুক্ত মসজিদের নাম। জেরুসালেমের পুরাতন শহর, যা জাতিসঙ্ঘ সাংস্কৃতিক সংস্থা ইউনেস্কোর দ্বারা একটি বিশ্ব ঐতিহ্য স্থান হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে।

এটি তিন ইব্রাহিমী ধর্মের (মুসলিম, ইহুদি, খ্রিস্টান) জন্য গুরুত্বপূর্ণ। মুসলমানদের জন্য ইসলামের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান আল-আকসা মসজিদ। সপ্তম শতকের কাঠামো এটি যেখানে নবী মুহাম্মদ সা: মেরাজের দিন বেহেশতে যাত্রা করেছিলেন। কম্পাউন্ডের পশ্চিম প্রাচীর ইহুদীদের কাছে ওয়ালিং প্রাচীর নামে পরিচিত, দ্বিতীয় গির্জার শেষ অবশিষ্ট বলে মনে করা হয়।