কোরআনের আলোয় আলোকিত করতে নাতিকে কোরআন শেখাচ্ছেন: এরদোগান

আন্তর্জাতিক

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান ও তার নাতীর একটি ছবি। যেখানে দেখা গেছে, নাতীকে পবিত্র কোরআন শেখাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট এরদোগান।

একেই বলে মহান মানুষ। রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে থেকেও নিজের পরিবারকে সময় দেয়া, শিক্ষা দেয়ার বিষয়গুলোও তারা ভুলেন না। নাতিকে পবিত্র কোরআনের আলোয় আলোকিত করতে চান।

ছবিটি দেশটির প্রথম সারির গণমাধ্যমেও প্রকাশ হয়েছে। শুক্রবার তুরস্কের বহুল প্রচারিত পত্রিকা ইয়েনী সাফাক ছবিটি ছাপিয়ে লিখেছে, গভীর রাতে বা ফজর নামাজের পরে কিছুটা অবসর সময় পান তুরস্কের প্রেসিডেন্ট। সে সময়ে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটান তিনি।

মাঝেমধ্যে সময় পেলেই নাতিকে কোরআন শেখাতে বসে যান এরদোগান। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোয়ান একজন কুরআনের হাফেজ এটা অনেকেই জানেন। শুধু তাই নয়, বর্তমানে পৃথিবীতে তিনিই একমাত্র প্রেসিডেন্ট যিনি একাধারে প্রেসিডেন্ট এবং পবিত্র কুরআনে হাফেজ।

তবে জানা গেছে, এটা এই সময়ের ছবি নয়। ২০১৬ সালের ১৫ জুলাইয়ে তোলা ছবি এটি। এ প্রসঙ্গে এরদোগান দেশটির বেসরকারি টিভি চ্যানেল ২৪ টিভিতে এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন যে, ছবির শিশুটি আমার নাতি আহমেদ আকিফ।

আমার জামাতা তুরস্কের অর্থবিষয়ক মন্ত্রী বেরাত আলবায়রাকের ছেলে। ছবিটি মারমারিসে সেই রাতে তোলা হয়েছিল যে রাতে ব্যর্থ অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা করা হয়েছিল। আমি সেদিন আমার নাতিকে বলেছিলাম দৈনিক পাঁচ পৃষ্ঠা করে কোরআন পড়তে। মাশাআল্লাহ, তার আগ্রহ দেখে আমি অভিভূত হয়ে যাই।

আমার সঙ্গে পড়তে পড়তে ধীরে কোরআন পড়া শিখে গিয়েছিল সে। তুরস্কের গণমাধ্যম হুররিয়াত ডেইলি নিউজ জানিয়েছে, আহমেদ আকিফ আলবায়রাকের মায়ের নাম ইশরা আলবায়রাক। তার বাবা বেরাত তুরস্কের জ্বালানি মন্ত্রী ছিলেন।

উল্লেখ্য, প্রেসিডেন্ট এরদোগান পার্লামেন্টে মাঝে মাঝেই নামাজের ইমামতি করেন এবং তুরস্কে অনেক মসজিদে তিনি ইমামতি করেছেন। তার উদ্যোগে প্রতি বছর কুরআন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় এবং এতে বিশ্বের অনেক হাফেজ অংশগ্রহণ করে থাকেন। সূত্র: হারিয়েত ডেইলি।