পথচারী তরুণীর তোলা ভিডিও থেকে বিশ্বজুড়ে জ্বলছে প্রতিবাদের আগুন

আন্তর্জাতিক

আমেরিকায় মোবাইল ফোনে পুলিশের আচরণের ভিডিও ছবি তোলার ঘটনা অনেক বেড়েছে। যখন কোন ভিডিও ভাইরাল হয়, সেই ভিডিও-র বিষয়বস্তু যখন সংবাদ শিরোনাম হয়, তখন যে ওই ভিডিও তুলেছে তার নাম সংবাদের আড়ালে প্রায়শই ঢাকা পড়ে যায়।

কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েড নি:শ্বাস নিতে পারছেন না, পুলিশ অফিসার তার গলার ওপর চেপে বসেছে, ভিডিওতে এই ছবি তুলেছিলেন পথচারী ১৭ বছরের তরুণী ডারনেলা ফ্রেজিয়ার।

যখন তিনি ভিডিও ক্যামেরা চালু করেন তখন ৪৬ বছর বয়স্ক জর্জ ফ্লয়েড দম নিতে না পেরে হাঁপাচ্ছেন, কাতর কণ্ঠে বারবার অনুনয় করছেন, “প্লিজ, প্লিজ, প্লিজ”।

তার ক্যামেরা তখন ছবি তুলছে বিশ সেকেন্ড ধরে। মি. ফ্লয়েড এরপর আর যে তিনটি শব্দ উচ্চারণ করতে পেরেছিলেন, তা এখন বিশ্বজোড়া এক আন্দোলনের মূলমন্ত্র হয়ে উঠেছে।

“আই কান্ট ব্রিদ”-“আমি নি:শ্বাস নিতে পারছি না,” মি. ফ্লয়েড কোনমতে বলেছিলেন।

কথাগুলো কিছুটা অস্পষ্ট ছিল। মি. ফ্লয়েডের দুহাত পিছমোড়া করে বেঁধে তখন তাকে মাটিতে শুইয়ে ফেলেছে তিনজন পুলিশ অফিসার। এদের একজন ৪৪ বছর বয়স্ক ডেরেক শভিন তার হাঁটু দিয়ে মি. ফ্লয়েডের গলা চেপে ধরেছেন। মি. ফ্লয়েডের মুখ নিচের দিকে। তিনি কথা বলছেন অতিকষ্টে।

জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর জন্য হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে পুলিশ অফিসার ডেরেক শভিনের বিরুদ্ধে মিস ফ্রেজিয়ার তার নয় বছরের এক কাজিন বোনকে নিয়ে ‘কাপ ফুডস্’ নামে এক দোকানে যাচ্ছিলেন। দোকানটা মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনিয়াপোলিস শহরে – তার বাসার বেশ কাছেই। পথে তিনি দেখতে পান পুলিশ কীভাবে মি. ফ্লয়েডের গলা চেপে ধরেছে।

তিনি দাঁড়িয়ে যান। তার ফোন বার করেন এবং রেকর্ড বোতামে চাপ দেন। পুরো দশ মিনিট নয় সেকেন্ড তিনি ভিডিওতে ছবি তোলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত পুলিশ অফিসাররা ও মি. ফ্লয়েড সেখানে ছিলেন। পুলিশ অফিসাররা পায়ে হেঁটে স্থান ত্যাগ করে আর মি. ফ্লয়েডকে স্ট্রেচারে করে নিয়ে যাওয়া হয়।

“তার মনে হয়েছিল এ ঘটনার প্রমাণ রাখা দরকার,” মিস ফ্রেজিয়ারের আইনজীবী সেথ কোবিন বিবিসিকে বলেন, “বলা যায় তার এই ভিডিওর কারণে নতুন রূপে নাগরিক অধিকার আন্দোলনের পুনর্জন্ম হয়েছে।”

তার আইনজীবী বলেছেন ২৫শে মে ‘কাপ ফুডস্’ দোকানের বাইরে তিনি যা দেখেছেন তাতে তিনি আতঙ্কিত। “তার জীবনে সে এর চেয়ে ভয়াবহ কোন ঘটনা দেখেনি।”