কেউ আহত শুনলেই ছুটে যান আকবর

অন্যান্য

করোনা নিয়ে অহেতুক আতঙ্ক এতটাই ছড়িয়েছে যে রাস্তায় কেউ অসুস্থ হয়ে পড়ে থাকলেও অধিকাংশ মানুষই সেদিকে ফিরেও তাকান না। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া তো দূর অস্ত। এই যখন অবস্থা তখন তিনি মূর্তিমান ব্যতিক্রম। জাতীয় সড়কের ধারে সস্তার হোটেল চালান। সেই কাজ সামলেই কোথাও কেউ অসুস্থ কিংবা পথদুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন শুনলে ছুটে যান বেলডাঙার ভাবতার যুবক আকবর আলি।

কয়েক বছর ধরে এভাবে দুর্গতর পাশে দাঁড়াচ্ছেন তিনি। বেলডাঙার ভাবতা এলাকায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে একটা ছোট হোটেল চালান আকবর। সারাদিনে রোজগার আহামরি কিছু নয়। তবে অন্যের বিপদে বরাবর পাশে দাঁড়াতে ভালবাসেন আকবর। সেই জন্য জাতীয় সড়কে কোনও গাড়ি, মোটরবাইক বা সাইকেল আরোহী দুর্ঘটনায় পড়েছেন বলে খবর পেলে সব কাজ ফেলে তিনি ছুটে যান সেখানে।

আহতকে স্থানীয় হাসপাতাল প্রয়োজনে আরও দূরের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া থেকে যাবতীয় দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন তিনি। আহত ব্যক্তি যদি দুঃস্থ হন তবে তাঁর চিকিৎসার যাবতীয় খরচ নিজের কাঁধেই তুলে নেন তিনি। প্রসঙ্গত, বিভিন্ন সময়েই দেখা গিয়েছে, পুলিশি ঝামেলার ভয়ে ইচ্ছে থাকলেও আহতকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে সাহস করেন না অনেকে।

আকবর অবশ্য অন্য মানুষ। আহত ব্যক্তির পরিবারের লোকজনের অপেক্ষায় না থেকে হাসপাতালে সইসাবুদ, প্রয়োজনে পুলিশকে জানানোর কাজটাও তিনি নিজেই করেন। মাস চারেক আগের ঘটনা। সাইদুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি ১০ বছরের ছেলেকে সাইকেলে বসিয়ে বেলডাঙা থেকে ভাবতার বাড়িতে ফিরছিলেন।

নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি পিকআপ ভ্যান তাঁদের ধাক্কা দিলে গুরুতর জখম হন চাঁপাপাড়ার বাসিন্দা সাইদুল। গাড়িটি ধাক্কা মেরে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে আকবর ঘটনাস্থলে যান। ওই জায়গা দিয়ে যাওয়া একটি ছোট ম্যাটাডরে আহত দু’জনকে প্রথমে বেলডাঙা ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ও পরে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান তিনি।

সেখানে গিয়ে আহতদের এক্সরে করানো, সিটি স্ক্যান-সহ বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানো—সবই আকবর করেন। সাইদুলের ছেলে সাকিবুল সোমবার বলেন, “আকবরদা না থাকলে যে কী হত, ভেবেই কুল পাচ্ছি না। সময়ে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল বলে ভাই আর বাবা সুস্থ হয়েছে।’’ এর দিনকয়েক আগে রাজু মণ্ডল নামে এক মোটরবাইক আরোহী দুর্ঘটনার মুখে পড়েছিলেন।

তাঁকেও সময়ে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন আকবর। কাজিসাহা গ্রামের কালু শেখ মোটরবাইক দুর্ঘটনায় আহত হলে তাঁর যাবতীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছিলেন আকবরই। কালু এদিন বলেন, ‘‘আকবর ভাই না থাকলে আমি প্রাণে বাঁচতাম না।’’
যদিও এ নিয়ে প্রথমে কিছু বলতেই চাইলেন না আকবর।

পরে লাজুক স্বরে বললেন, “আমার হোটেলটা ছোট হলেও সংসারটা চলে যায়। রাস্তার ধারে হোটেল হওয়ায় কোথাও দুর্ঘটনা ঘটলে তা দ্রুত কানে আসে। অনেকেই ভয়ে এগিয়ে যায় না। ফলে রাস্তায় পড়ে থেকে মারা যান আহত। কিন্তু দেখা গিয়েছে, সময়মতো আহতকে হাসপাতালে পাঠানো গেলে হয় তো তিনি বেঁচে যেতেন।

সে কথা ভেবেই এগিয়ে যাই।’’ স্বামীর এমন কর্মকাণ্ডে গর্বিত আকবরের স্ত্রী তাহামিনাও। বলেন, “দিনেরবেলাই শুধু নয়, রাত-বিরেতে কারও কিছু হলেও ছোটেন হাসপাতাল। পাঁচ বছর ধরে এটাই দেখে আসছি। করোনা পরিস্থিতিতে শুধু মাস্ক পরার কথাটা ওকে সব সময় মনে করিয়ে দিই।’’

বেলডাঙা-১ ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক সোলেমান মণ্ডল বলেন, “দুর্ঘটনার সময় যে কোনও লোকেরই সাহায্যের প্রয়োজন হয়। এই সময় কেউ পাশে দাঁড়ালে দুর্ঘটনাগ্রস্ত দ্রুত চিকিৎসা পান। যেটা তাঁর পক্ষে খুব জরুরি। কেউ এই কাজে এগিয়ে এলে তাঁকে বাকিদেরও সাহায্য করা উচিত।’’

আরো পড়ুন: বিশ্বে ১ কোটি ২০ লাখ ইহুদি ঐক্যবদ্ধ আর ১৩০ কোটি মুসলমান বিভক্ত : ইমরান খান

বিশ্ব মুসলিমদের ঐক্যবদ্ধ জরুরি দাবি করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, ‘প্রভাবশালী, শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ থাকায় মাত্র এক কোটি ২০ লাখ ইহুদিদের বিরুদ্ধে পশ্চিমা বিশ্ব টু শব্দটি করছে না।

অথচ ১৩০ কোটি মুসলমানকে বিশ্বের সর্বত্র নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে।’ মঙ্গলবার আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তা বিষয়ক মালয়েশীয় থিংকট্যাংকদের একটি অধিবেশনে তিনি এসব কথা বলেন। বিভক্তির কারণেই মুসলমানরা সর্বত্র নির্যাতিত হচ্ছে বলে মন্তব্য করে ইমরান খান বলেন,

‘লড়াই করতে মুসলিম উম্মাহ ঐক্যবদ্ধ হোক, সেটা আমরা চাই না, কিন্তু অন্যান্য সম্প্রদায়ের মতো তারা নিজেদের স্বার্থ রক্ষা করুক।’ পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘লিবিয়া, সোমালিয়া, সিরিয়া, ইরাক ও আফগানিস্তানসহ সর্বত্র মুসলমানদের বিপর্যয়ের কাহিনী।

এর কারণ হচ্ছে- আমাদের কোনও ঐক্য নেই। আমাদের মধ্যে বিভক্তির কোনও শেষ নেই।’ এমনকি অধিকৃত কাশ্মিরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারেনি ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) মুসলমান দেশগুলো বলেও জানান ইমরান খান।

দুইদিনের মালয়েশিয়া সফরের শেষ দিকে একটি কনফারেন্সে তিনি আরও বলেন,’ মুসলমানদের বিরুদ্ধে নিপীড়নের জবাব হচ্ছে মুসলিম দেশগুলোর ঐকবদ্ধ হওয়া। কাজেই মিয়ানমার ও কাশ্মিরে যা ঘটছে, যেখানে কেবল ধর্মের কারণে মুসলমানদের নির্যাতিত হতে হচ্ছে, এমন বিষয়গুলোতে তাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

পাকিস্তান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কারণে ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যে সাম্প্রতিক সাংঘর্ষিক অবস্থা কেটে গেছে জানানা ইমরান খান।

আরো পড়ুন- চুমু খেয়ে কুরআন অবমাননার প্রতিবাদ জানালেন সুইডেনের অমুসলিম নারী

চুমু খেয়ে কুরআনুল কারীম অবমাননার প্রতিবাদে জানালেন অমুসলিম এক সুইডিশ নারী। চুমু খাওয়ার দৃশ্যটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ফেসবুক ও অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায় সুইডেনের মালমো শহরে সংঘটিত কুরআনুল কারীম পোড়ানোর প্রতিবাদে ওই অমুসলিম নারী কুরআনে চুমু খান। আর বলেন, ‘সুইডিশ নারী মালমো শহরের মুসলিমদের সঙ্গে একত্বতা ঘোষণা করেছে।’

ফেসবুক পেজে বলা হয়, ওই নারী বলছে, আমি জানি না বইটি কি সম্পর্কে। কিন্তু মানবতা ও অনুকম্পার জন্য আমি তোমাদের সঙ্গে একাত্বতা ঘোষণা করছি। বইটি যেহেতু তোমাদের কাছে গুরুত্ব, তাই আমার কাছেও তা গুরুত্বপূর্ণ। বইটি চুমু দিয়ে আমি গর্বিত।

সুইডিশ নারী আরো বলেন, ডেনিশ ব্যক্তি সুইডেনে যা করেছে তাতে আমরা সন্তুষ্ট নই। সুইডেনের পত্রিকা নারীটির ছবি প্রকাশ করলে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবার দৃষ্টি কাড়ে।